জাপানের ঘুমন্ত মুসলমানেরা

তার উপাসনার জায়গার চতুর্থ তলার লাইব্রেরীতে বসে Yoshi Date তার আধ্যাত্মিক হওয়ার কাহিনী বর্ণনা করছিলেন। এটি পশ্চিমাদের আধ্যাত্মের সন্ধানে পূর্বে আগমনের কাহিনী নয়। ইয়োশির ক্ষেত্রে ঘটেছে ঠিক উল্টোটি। ২৪ বছর বয়সী জাপানি ইয়োশির বেড়ে উঠেছিল একটি বৌদ্ধ পরিবারে। পশ্চিমা সংস্কৃতির অস্ট্রেলিয়ায় কলেজে পড়ার সময় আব্রাহামিক ধর্মের ব্যাপারে আগ্রহী হয়ে উঠেন ইয়োশি। আব্রাহামিক ধর্মের সন্ধানে তিনি বাইবেলের শরণাপন্ন হন, কিন্তু সম্পূর্ণরূপে সন্তুষ্ট না হয়ে, তিনি কুরআন পাঠ শুরু করেন।

ডাতে ইন্টারনেট চুক্তি বিক্রি করার শপে চাকুরি করতেন, এবং তিনি বলছিলেন, "ইসলাম সম্পর্কে আমি যা কিছু জানতাম তা ছিল শুধুমাত্র কিছু বোমাবর্ষণ"। এক রাতে, তিনি একটি স্বপ্ন দেখেন: বোমা ফুটছে, বন্দুকে গুলি করা হচ্ছে, এবং তিনি একটি গাড়ির পিছনে উপুড় হয়ে আছেন। হঠাৎ পিছন থেকে তিনি একটি কন্ঠস্বর শুনতে পান, “আল্লাহু আকবার”। কন্ঠস্বরটি আল্লাহু আকবার বলে আরো উচু হয়ে উঠল। ডাতে ঘুম থেকে জেগে উঠলেন এবং গুগুলে শব্দটি সার্চ দিলেন। তিনি কখনোই এর আগে বাক্যটি শুনেননি। একজন মুসলিম হিসাবে বসবাস শুরু করলেন তিনি, শুয়োরের মাংস এবং এলকোহল বর্জন করলেন, কুরআন অধ্যয়ন করা শুরু করলেন। কলেজ শেষ করার পর যখন টোকিওতে ফিরে আসার পর থেকে ফিরে শাহাদা গ্রহণ করলেন, শাহাদার মাধ্যমে ঘোষণা দেয়া হয় আল্লাহ শুধুমাত্র সৃষ্টিকর্তা এবং হযরত মুহাম্মদ (তাঁর উপর শান্তি বর্ষিত হোক) তার প্রেরিত রাসুল।

  • The 'Sleeping Muslims' of Japan